সোমবার  ১৮ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং  |  ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ  |  ২০শে রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী

বইমেলা প্রাঙ্গণে আন্তর্জাতিক সাহিত্য উৎসব

বিকেল থেকেই মেলা পরিণত হয় জনসমুদ্রে। বিকেল ৩টায় খোলা হয় মেলার দুয়ার। বেলা গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে ভিড়। বিকেল ৫টার মধ্যেই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের বইমেলা প্রাঙ্গণ হয়ে পড়ে লোকারণ্য। মেলায় আজ শুক্রবার সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত থাকবে শিশুপ্রহর। দুপুরের পর থেকে তা উন্মুক্ত থাকবে সব বয়সের মানুষের জন্য।
এদিকে মেলার আয়োজনের অংশ হিসেবে গতকাল বাংলা একাডেমিতে শুরু হয়েছে দুই দিনের আন্তর্জাতিক সাহিত্য সম্মেলন। ‘দক্ষিণ এশিয়ার সাম্প্রতিক সাহিত্য’ শীর্ষক এ সম্মেলনে অংশ নিয়েছেন দেশ-বিদেশের অনেক লেখক-সাহিত্যিক।

বাংলা একাডেমির আব্দুল করিম সাহিত্যবিশারদ মিলনায়তনে সম্মেলনের উদ্বোধনী সেমিনার অনুষ্ঠিত হয় গতকাল সকাল ১০টায়।

এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ড. ফকরুল আলম। আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভারতের অনুবাদক ও গবেষক রাধা চক্রবর্তী। সভাপতিত্ব করেন ইমেরিটাস অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম।
মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করে ড. ফকরুল আলম বলেন, দক্ষিণ এশীয় লেখকদের সাহিত্যে প্রান্তীয় মানুষের স্বর যেমন উঠে আসে, তেমনি নতুন এক সাহিত্যরীতিরও এ অঞ্চলের লেখকরা জন্ম দিয়ে চলেন; যার মধ্যে সময়, দেশ ও মানুষের মহাস্বরই প্রতিধ্বনিত হয়ে চলে। রাধা চক্রবর্তী বলেন, দক্ষিণ এশিয়ার সাম্প্রতিক সাহিত্যে নানা অভিমুখ পরিলক্ষিত হলেও মানবমুখী প্রবণতাই প্রধান।

সভাপতির বক্তব্যে অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম বলেন, ঔপনিবেশিক বাস্তবতা দক্ষিণ এশিয়ার সাধারণ মানুষকে যেমন স্বাধীনতার অদম্য স্পৃহা দান করেছে, তেমনি এ অঞ্চলের লেখকদের মাঝে নতুন সাহিত্যিক রূপরীতি অনুসন্ধানের মানস গঠন করেছে।

সম্মেলনের দ্বিতীয় পর্বে দুপুর ১২টা থেকে ঘণ্টাব্যাপী অনুষ্ঠিত হয় ‘দক্ষিণ এশিয়ার কথাসাহিত্য’ বিষয়ে ভারতের লেখক অরুণা চক্রবর্তী ও বাংলাদেশের ড. ফিরদৌস আজিমের আলাপচারিতা। তাঁরা বলেন, সাহিত্যিককে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে নিজেকে নবায়ন করে নিতে হয়। চারপাশের মুহুর্মুহু পরিবর্তনকে আত্মস্থ করতে হয় এবং ইতিবাচক দৃষ্টিতে জীবনকে অবলোকন করতে হয়। জীবনরসের সন্ধান না পেলে সাহিত্য মানুষের সঙ্গে সংযোগহীন হতে শুরু করে। দক্ষিণ এশিয়ার কথাসাহিত্যেও ব্যক্তি ও সমষ্টি—উভয়ই সমগুরুত্ব লাভ করেছে।

দুপুর আড়াইটা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত সেমিনারে মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন রিফাত মুনিম। আলোচনায় অংশ নেন সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, শ্রীলঙ্কার সাহিত্যিক ও ইমেরিটাস অধ্যাপক জি বি দিশানায়েক, কলম্বিয়ার কথাসাহিত্যিক আন্দ্রেজ মাউরিসিয়ো মুনজ ও খালিকুজ্জামান ইলিয়াস। বক্তারা বলেন, দক্ষিণ এশিয়ার কথাসাহিত্যিকরা যেমন শিল্পমান সম্পর্কে সচেতন, তেমনি মানুষের অধিকারের কথা নতুনতর গদ্যরীতিতে পরস্ফুিট করছেন। যদিও একমাত্রিক বিশ্বায়নের প্রভাবে কথাসাহিত্যের ভাষাও আজ চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি। এ অঞ্চলের কথাসাহিত্য-পরিসরে দলিত সাহিত্য, নারীস্বর যেমন গুরুত্ব পেয়েছে, তেমনি লিখিত রীতির পাশাপাশি মৌখিক কথকতার রূপরীতিও ফুটে উঠেছে।

বিকেল ৪টা থেকে সাড়ে ৫টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয় ‘দক্ষিণ এশিয়ান থিয়েটার’ বিষয়ক আলোচনা পর্ব। এতে মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন রামেন্দু মজুমদার। আলোচনায় অংশ নেন শফি আহমেদ, নাসির উদ্দীন ইউসুফ ও ভারতের নাট্যজন অংশুমান ভৌমিক।

সাহিত্য সম্মেলনের শেষ দিনে আজ সকাল ১০টায় অনুষ্ঠিত হবে ‘দক্ষিণ এশিয়ার কবিতা’ শীর্ষক আলোচনা পর্ব। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন অধ্যাপক কায়সার হক। আলোচনায় অংশ নেবেন নেপালের লেখক আভি সুবেদি, কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা, অধ্যাপক সোনিয়া নিশাত আমিন ও সাদাফ সায। দুপুর ১২টায় ‘দক্ষিণ এশিয়ার ভাষা এবং অনুবাদ’ শীর্ষক সমাপনী আলোচনা পর্বে বক্তব্য দেবেন অধ্যাপক আবদুস সেলিম। আলোচনায় অংশ নেবেন রাশিদ আসকারী, ফায়েজা হাসানাত ও জি এইচ হাবীব।

গতকাল মেলায় নতুন বই এসেছে ১০৩টি। এর মধ্য থেকে প্রকাশিত চারটি বইয়ের তথ্য-পরিচিতি ছাপা হলো।

নন্দিত নগরে : জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য আব্দুল বায়েসের গল্পগ্রন্থ। বইটি সমাজের নানা পেশার মানুষের বহু বিচিত্র উপাখ্যান। এতে উঠে এসেছে জীবনের বহুরৈখিক অভিজ্ঞতা। বইটি প্রকাশ করেছে পাঞ্জেরী পাবলিকেশনস। প্রচ্ছদ করেছেন ধ্রুব এষ। দাম ২০০ টাকা।

পোড়াবে চন্দন কাঠ : কবি মুহাম্মদ সামাদের কাব্যগ্রন্থ। তাঁর কবিতার ভাষা স্বতন্ত্র ও সাবলীল। সহজ ও প্রাণবন্ত ভাষায় তিনি কবিতায় তুলে ধরেন মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও দেশমাতৃকতার কথা। পাশাপাশি কবিতায় তিনি ফুটিয়ে তোলেন প্রেম, প্রকৃতি ও মানবিক পৃথিবী নির্মাণের স্বপ্ন। বইটি প্রকাশ করেছে চারুলিপি। প্রচ্ছদ করেছেন শিশির ভট্টাচার্য্য। দাম ১২৫ টাকা।

বিকল্প অভিধান : রেজাউদ্দিন স্টালিনের কবিতার বই। সাধারণ বিষয়কে দেখার দৃষ্টি, অনুভবের শক্তি, কল্পনার ক্ষমতা তাঁর কবিতার প্রধান ক্ষেত্র। এই বইটিও তার ব্যতিক্রম নয়। বইটি প্রকাশ করেছে কথাপ্রকাশ। প্রচ্ছদ করেছেন মোস্তাফিজ কারিগর। দাম ১২৫ টাকা।

একজন রোহিঙ্গার স্বগতোক্তি : আরিফ মঈনুদ্দীনের কবিতার বই। সাম্প্রতিক রোহিঙ্গা ইস্যু, রোহিঙ্গাদের মানবিক টানাপড়েন ও বাস্তুচ্যুতি নিয়ে লেখা কবিতাগুলো। এতে উঠে এসেছে রোহিঙ্গাদের প্রতি কবির অনুপম ভালোবাসা ও সমর্থন। বইটি প্রকাশ করেছে সব্যসাচী পাবলিকেশনস, পরিবেশক বিশ্বসাহিত্য ভবন। প্রচ্ছদ করেছেন মাসুম রহমান। দাম ১৪০ টাকা।

সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ পুরস্কার প্রদান : গতকাল সন্ধ্যায় গ্রন্থমেলার মূল মঞ্চে বাংলা একাডেমি পরিচালিত সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ পুরস্কার ২০১৭ প্রদান করা হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। সভাপতিত্ব করেন একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান। সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ পুরস্কার ২০১৭-তে ভূষিত হয়েছেন কানাডাপ্রবাসী কবি মাসুদ খান ও যুক্তরাজ্যপ্রবাসী কবি মুজিব ইরম। মাসুদ খান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন না। তাঁর পক্ষে পুরস্কার গ্রহণ করেন ড. সাইমন জাকারিয়া। পুরস্কারপ্রাপ্তদের হাতে পুরস্কারের অর্থমূল্য ৫০ হাজার টাকার চেক, পুষ্পস্তবক ও সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ও সভাপতি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আসাদুজ্জামান নূর বলেন, ‘কবিরা সমাজের পথপ্রদর্শক। সমাজ যত কবিতাময় হবে ততই মঙ্গল আভায় উজ্জ্বল হয়ে উঠবে আমাদের পরিপার্শ্ব। ’ অনুভূতি প্রকাশ করে মুজিব ইরম বলেন, এই পুরস্কার দূর-প্রবাসে উষ্ণতার অনুভূতি ছড়াবে সব সময়।

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com