মঙ্গলবার  ২৮শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ  |  ১৪ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ  |  ২৮শে জিলকদ, ১৪৪৩ হিজরি

দাওয়াই জীবন রক্ষা করে সিপিআর

সাময়িকভাবে হৃৎপিণ্ড ও ফুসফুসের কাজ কিছু সময় কৃত্রিমভাবে চালিয়ে মস্তিষ্কে রক্ত ও অক্সিজেন সরবরাহ করাকে বলে ‘কার্ডিওপালমোনারি রিসাসিটেশন’ বা ‘সিপিআর’। হার্ট অ্যাটাক, পানিতে ডুবে যাওয়া বা ইলেকট্রিক শকের মতো বিভিন্ন কারণে শ্বাস বা হৃৎস্পন্দন বন্ধ হয়ে গেলে জরুরিভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা হিসেবে সিপিআর দেওয়া হয়। এটি বিশ্বব্যাপী বহুল প্রচলিত ও স্বীকৃত।

গুরুত্ব

কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হলে হৃত্স্পন্দন ও রক্তপ্রবাহ বন্ধ হয়ে যায়।ফলে ব্যক্তি ১৫ সেকেন্ডের মধ্যে অচেতন হয়ে যায়। ৩০-৬০ সেকেন্ডের মধ্যে রোগীর শ্বাস-প্রশ্বাস বন্ধ হয়ে যায়। ফলে অক্সিজেনের অভাবে মস্তিষ্ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়, ঘটে মৃত্যু। এই সময় সিপিআর বাঁচাতে পারে প্রাণ।

 

সিপিআর প্রয়োগের নিয়ম

আগে থেকে ধারণা থাকলে যে কেউ সিপিআর দিতে পারেন। প্রথমেই কেউ অজ্ঞান হয়ে গেলে চিৎকার দিয়ে অন্য কারো সাহায্য চাইতে হবে। দুজন হলে সহজে কাজগুলো করা যাবে। সিপিআরের শুরুতে আক্রান্ত ব্যক্তির আশপাশের অবস্থা দেখে নিতে হবে। বৈদ্যুতিক তার বা বিষাক্ত কিছু থাকলে তা সরিয়ে নিতে হবে। এরপর দেখতে হবে ব্যক্তিটির জ্ঞান আছে কি না। জ্ঞান না থাকলে তার শ্বাস নেওয়ার পথ যেমন—নাক, মুখ ও গলার ভেতরের অংশ পরিষ্কার আছে কি না দেখতে হবে। তার মাথার পেছনের দিকটা টেনে, থুঁতনি ওপরের দিকে তুলে শ্বাসনালি খুলে দিতে হবে।

ব্যক্তির এক পাশে এসে বুক বরাবর এক হাতের তালুকে বুকের মাঝ বরাবর স্থাপন করতে হবে। তার ওপর অন্য হাত রেখে ওপরের হাতের আঙুল দিয়ে নিচের হাতকে আঁকড়ে ধরতে হবে। হাতের কুনই ভাঁজ না করে সোজাভাবে বুকের ওপর চাপ দিতে হবে। এমনভাবে চাপ দিতে হবে, যেন প্রতি মিনিটে ১০০-১২০টি চাপ প্রয়োগ করা যায়। এভাবে ৩০টি চাপ প্রয়োগের পর আক্রান্তের মুখে মুখ রেখে দুইবার ফুঁ দিতে হবে। এমনভাবে চাপ প্রয়োগ করতে হবে যেন বুকের পাঁজর ২ থেকে ২.৫ ইঞ্চি নিচে নামে, যাতে চাপ হৃৎপিণ্ডের ওপর পড়ে। হাসপাতালে পৌঁছানোর আগ পর্যন্ত বা জ্ঞান ফিরে আসা বা স্বাভাবিক শ্বাস-প্রশ্বাস চালু হওয়া পর্যন্ত একইভাবে সিপিআর চালিয়ে যেতে হবে।

জ্ঞান ফিরলে বা শ্বাস-প্রশ্বাস চালু হলে তাকে রিকভারি পজিশনে (এক পাশে কাত করে) শুইয়ে দিতে হবে। এরপর হাসপাতালে নিয়ে পরবর্তী চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে।

পরামর্শ দিয়েছেন

ডা. অদিতি সরকার

রেসিডেন্ট চিকিৎসক

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com