শুক্রবার  ৩রা ডিসেম্বর, ২০২১ ইং  |  ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ  |  ২৬শে রবিউস-সানি, ১৪৪৩ হিজরী

ছেলের জন্য আইনজীবী নিয়ে জেলে শাহরুখ

আর্থার রোড জেলে গিয়ে মাদক-মামলায় বন্দি থাকা ছেলে আরিয়ানের সঙ্গে দেখা করলেন ‘বলিউডের বাদশা’ শাহরুখ খান। মাদক নিয়ন্ত্রণ ব্যুরোর হাতে আরিয়ান গ্রেপ্তার হওয়ার পর এই প্রথম তার সঙ্গে জেলে গিয়ে দেখা করলেন শাহরুখ।

আজ বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময়  সকাল ৯টা নাগাদ মুম্বাইয়ের আর্থার রোড জেলে পৌঁছান শাহরুখ। তাঁর সঙ্গে ছিলেন আইনজীবীদের একটি দল। জেলের ভেতর প্রায় ১৫ মিনিট ছিলেন শাহরুখ। দ্রুত সাক্ষাৎ সেরে বেরিয়ে যান তিনি। তাঁর সঙ্গেই ফেরত যায় আইনজীবীদের দলটিও।

ছেলের সঙ্গে সাক্ষাতের বিষয়টি আড়ালেই রাখতে চেয়েছিলেন শাহরুখ খান। যে কারণে বড় কনভয় বা বড় গাড়ি নিয়ে তিনি আর্থার রোড জেলে যাননি। তিনি পৌঁছান একটি ছোট গাড়িতে। গাড়ির কাচ কালো। তখনো ভারতের বাণিজ্যনগরীতে অফিস টাইম ঠিকঠাক শুরু হয়নি।

তবে শাহরুখের আসার খবর আগে থেকেই পেয়ে গিয়েছিল সংবাদমাধ্যমের একাংশ। ফলে তারা আর্থার রোড জেলের মূল ফটকের বাইরে ভিড় করেছিল। জমায়েত ছিল জেলের প্রহরীদেরও। আর্থার রোড জেলটি মুম্বাই শহরের মধ্যেই। একটা সময়ে সেখানে বিশেষ টাডা আদালতে বিচার হয়েছিল বলিউডের নায়ক সঞ্জয় দত্তের। সেখানে বেশ কিছুদিন বন্দিও ছিলেন তিনি। বন্দি ছিল ২৬/১১ মামলায় অভিযুক্ত পাকিস্তানের জঙ্গি আজমল আমির। শহরের মধ্যে একটি ব্যস্ত রাস্তার উপর ওই জেলের ফটকে অল্প লোক জমায়েত হলেই তা ভিড়ের চেহারা নেয়। বৃহস্পতিবার সকালেও তার ব্যতিক্রম হয়নি।

জেলের মূল ফটকের সামনেই গাড়ির পেছনের আসন থেকে নামেন শাহরুখ। তিনি খুব সাধারণ একটি গোল-গলা টি-শার্ট এবং জিনসের ট্রাউজার পরে ছিলেন। মুখ ঢাকা কালো মাস্কে। চোখে কালো রোদচশমা। মাথার লম্বা চুল পনিটেলে বাঁধা। দেহরক্ষী পরিবৃত হয়ে তিনি দ্রুত জেলের ভেতরে চলে যান।

প্রশাসনের অনুমতির ভিত্তিতে সাধারণত এ ধরনের সাক্ষাৎ ৫ থেকে ১০ মিনিটের হয়ে থাকে। শাহরুখ জেলের ভেতরে ছিলেন প্রায় ১৫ মিনিট। তবে ওই সময়ের পুরোটাই তিনি আরিয়ানের সঙ্গে ছিলেন, এমন কথা হলফ করে বলা যাচ্ছে না। কারণ, বিভিন্ন আনুষ্ঠানিকতা মেটাতেও খানিকটা সময় লাগে।

ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো বলছে, বুধবারই কারাগার কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে পুত্রের সঙ্গে দেখা করার অনুমতি পেয়েছিলেন শাহরুখ। সে অনুসারে বেলা গড়ানোর আগেই তিনি পৌঁছান কারাগারে।

আরিয়ানের সঙ্গে দেখা করে কারাগার থেকে বের হওয়ার পর শাহরুখ সংবাদমাধ্যমের কাছে মুখ খোলেননি। যেমন মুখ খোলেননি ভিতরে যাওয়ার সময়েও। লম্বা-চওড়া চেহারার দেহরক্ষী তাঁকে ঘিরে দ্রুত গাড়িতে তুলে দেন। অনতিবিলম্বে জেলচত্বর ছেড়ে যান শাহরুখ। তাঁর সঙ্গে বেরিয়ে যায় তাঁর আইনজীবীর দলও।

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com