সোমবার  ২রা আগস্ট, ২০২১ ইং  |  ১৮ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ  |  ২২শে জিলহজ্জ, ১৪৪২ হিজরী

ক্যান্সারের কিছু উপসর্গ

ক্যান্সার মানেই মৃত্যু এখন আর বিষয়টা এমন না। ক্যান্সারের চিকিৎসা এখন অনেক উন্নত।  ভালোভাবে চিকিৎসা হলে ক্যানসার থেকে সেরে ওঠা সম্ভব। তবে প্রথম থেকে অবশ্যই চিকিৎসা করাতে হবে। এখন প্রশ্ন হলো কী দেখে বুঝবেন ক্যান্সার হয়েছে কি না। যদিও ক্যান্সারের নির্দিষ্ট কোন উপসর্গ নেই তবে শরীরে অদ্ভুত কোন উপসর্গ দেখা দিলে সতর্ক হতে বলছেন চিকিৎসকরা।  চলুন উপসর্গগুলো জেনে নেওয়া যাক।

১) মুখে আলসার হলে: যারা ধূমপান করেন বা তামাকজাত দ্রব্য সেবন করেন তাদের মুখের ভিতর অনেক সময়ই সাদা বা লাল ছোট ছোট ব়্যাশের মতো দেখা দিতে পারে। এমন যদি অনেক দিন পর্যন্ত থেকে যায়, তাহলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

২) শরীরে কোথাও লাম্পস দেখা দিলে: শরীরের কোনও অংশে লাম্পস দেখা দিলেই তার চিকিৎসা প্রয়োজন। তবে সব সময় লাম্পসে যে ক্যানসারের কোষ থাকবে তা নয়। লাম্পস অনেক সময় সিস্ট বা টিউমারও হয়ে থাকে।

) অকারণে রক্তক্ষরণ: কোনও কারণ ছাড়াই যদি শরীরে রক্তক্ষরণ হয়, তা হলে সেই বিষয়টিকে একেবারেই এড়িয়ে যাওয়া উচিত হবে না। যদি পিরিয়ড বা মেনোপজের পরও ব্লিডিং হয়, তা হলে তা অনেক সময় কার্ভিকাল ক্যানসারের কারণে হয়ে থাকে। আর যদি নিপলস থেকে রক্তক্ষরণ হয়, তাহলে বুঝতে হবে ব্রেস্ট ক্যান্সারের লক্ষণ।

৪)তিল বা আঁচিল: বড় তিল, বা আঁচিলের মতো শরীরে কিছু দেখা দিলে এবং সে জায়গায় রঙ পরিবর্তন হতে থাকলে ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

৫) গলা ব্যথা, সর্দি, খেতে অসুবিধা:এই তিনটের মধ্যে কোনও একটা বা এই তিনটা উপসর্গ যদি শরীরে অনেক দিন ধরে থাকে, তা হলে তা ফুসফুসের ক্যানসারের উপসর্গ। সেই সাথে যদি শ্বাসকষ্ট থাকে, বুকে ব্যাথা হয় তাহলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

৬) মল-মূত্র ত্যাগে পরিবর্তন: হঠাৎ করে যদি কোষ্ঠকাঠিন্য, ডায়রিয়া বা মলত্যাগ করার সময় তাতে রক্ত দেখা যায়, তাহলে অবশ্যই চিকিৎসা করাতে হবে। এছাড়াও মূত্র ত্যাগের সময় তাতে রক্ত আসছে কি না সেটাও দেখা প্রয়োজন। এগুলো প্রস্টেট বা ব্লাডার ক্যানসারের উপসর্গ।

৭) অরুচি:খাওয়ার ইচ্ছে  অনেক কারণে চলে যেতে পারে। কিন্তু ক্যানসার শরীরে লুকিয়ে থাকলে, তা মেটাবলিজমে আঘাত হানে এবং খাওয়ার ইচ্ছা নষ্ট হয়ে যায়।  সারাদিন পেট ভরা লাগে।

৮) দুর্বলতা, ঘুম পাওয়া: শরীরে ক্যানসার থাকলে দুর্বলতা থাকবে সেই সাথে ঘুম আসবে। সারাদিন ঘুমালেও দেখা যাবে শরীরে দূর্বলতা। এমন হলেও চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

৯) ওজন কমতে শুরু করলে: কোনও শরীর চর্চা না করে বা কোনও ডায়েট ফলো না করেই যদি হঠাৎ কারও ১০-২০ কেজি এক মাসে কমে যায়, তা হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। কারণ ক্যানসারের কারণে এমনটা হয়ে থাকে।

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com